MAKING YOUR FIRST $10K WITH GEARLAUNCH PRINT ON DEMAND

Share This Post

Share on facebook
Share on linkedin
Share on twitter
Share on email

আপনার প্রথম ১০ হাজার ডলার মেইক করুন গিয়ারলঞ্চ প্রিন্ট অন ডিমান্ড এর সাথে

প্রিন্ট-অন-ডিমান্ড (পিওডি) বিগত কয়েক বছরে অবিশ্বাস্যভাবে পপুলার হয়ে উঠেছে, তারা এন্টায়ার রিটেইল ভেঞ্চারদের ইনভেস্ট এর মেজর রিস্ক ছাড়াই মার্চেন্টদের ইনক্রিডিবল রেভিনিউ স্ট্রিম করার সুযোগ দিচ্ছে। 

গিয়ারলঞ্চ মার্চেন্টদের কাস্টম স্টোরফ্রন্টের পিছনে থেকে বা আরও ভালভাবে ডিরেক্টলি শপিফাই স্টোরে প্লাগ ইন করে প্রিন্ট অন ডিমান্ড বেনিফিট প্রোভাইড করে। গিয়ারলঞ্চ তাদের এক্সিসটিং ওয়ার্কফ্লোতে খুব সুন্দরভাবে কীভাবে ফিট করে তা মার্চেন্টদের বুঝতে সহযোগিতা করার জন্য, আমরা গিয়ারলঞ্চ এর থ্রোতে সাকসেসফুল প্রিন্ট অন ডিমান্ড সেলস ক্রিয়েট করতে একটি ব্রিফ গাইড তৈরি করেছি।

হিন্ট – আপনি এমনকি গিয়ারলঞ্চ বিহাইন্ড দ্যা সীন এ কিভাবে স্মুথলি কাজ করছে সেই বিষয়টিও নোটিশ করবেননা।

১. কানেক্ট ইউর স্টোর

মার্চেন্টরা দুটি উপায়ে গিয়ারলঞ্চ ইউজ করতে পারে:

  • একটি কাস্টম স্টোর ফ্রন্ট (একটি গিয়ারলঞ্চ ফিচার ) লঞ্চ করুন।
  • এক্সিস্টিং শপিফাই স্টোরটি কানেক্ট করুন 

উভয় অপশনগুলো গিয়ারলঞ্চের কোর এন্ড থেকে ইকমার্স ফীচার এন্ড হয়েই আসে:

গিয়ারলঞ্চের সাথে একবার আপনার স্টোরটি আপ এবং রানিং হয়ে গেলে, আপনি আপনার পিওডি স্ট্র্যাটিজি শুরু করতে পারেন।

২. রিসার্চ

ডিমান্ড, ডিসকভারি, ক্রিয়েটিভিটি হলো একটি সাকসেসফুল ক্যাম্পেইনের পার্ট। প্রপার রিসার্চ কন্ডাক্টিং করার মাধ্যমে আপনি তিনটি বেসই কভার করতে সহায়তা করবে।

“ইফ ইউ বিল্ড ইট, দে উইল কাম ” এই পপুলার বিশ্বাস এর বিপরীতে কনজিউমাররা খুব কম নতুন প্রোডাক্ট ডিসকভার করতে পারেন কারণ প্রোডাক্টগুলো অলরেডি এক্সিস্ট। পরিবর্তে, রিটেইলাররা একটি স্পেসিফিক নিশ ডিমান্ড টার্গেট করে হাফওয়েতে অডিয়েন্সদের সাথে মিট করে,পাশাপাশি কে গ্রুপ এনসিউর করে যে স্ট্রাটিজিক কীওয়ার্ড এবং কিফ্রেজের মাধ্যমে তারা প্রোডাক্ট ডেসক্রিপশনে তাদের প্রোডাক্টটি খুঁজতে পারবে এবং সেই গ্রুপের প্রয়োজন অনুসারে কাস্টমাইজ প্রোডাক্ট ডিজাইন করে নিতে পারবে। প্রসেসটি একদিনেই কমপ্লিট হবে না, কিন্তু আপনি এখানে যে প্রোডাক্টগুলো নিয়ে কাজ করতে পারেন সেগুলোর পাশাপাশি তাদের ডেসক্রিপশনের জন্য ইউজেজ যে পপুলার কীওয়ার্ডগুলো নিয়ে রিসার্চ শুরু করতে পারেন তা এখানে দেয়া হয়েছে :

  • পটেনশিয়াল ইন্টারেস্ট এবং কীওয়ার্ডগুলোর একটি লিস্ট তৈরি করুন, তারপরে যে কোনও পিওডি মার্কেটপ্লেসে যান এবং সার্চ বার এ আপনার লিস্টটি টেস্ট করুন। যদি কোনও ওয়ার্ড মাল্টিপল রেজাল্ট পেজ ক্রিয়েট করে, তার মানে আপনি একটি সলিড স্টার্টিং পয়েন্ট পেয়ে গিয়েছেন।
  • আপনার ব্রাউজারে Chrome Amazon DS Quick View extension এড করুন। এই নিফটি টুলসটি আমাজন ডট কম পেজগুলোর বিএসআর (বেস্ট সেলার র‌্যাঙ্কিং) প্রকাশ করবে।
  • পটেনশিয়াল ইন্টারেস্ট এবং কীওয়ার্ডলোর একটি লিস্ট ক্রিয়েট করুন, তারপরে পিন্টারেস্ট সার্চ রেজাল্টের সাথে লিস্টটি টেস্ট করুন। অনুপ্রেরণার জন্য আরও রি-পিনস পোস্টগুলো ইউজ করুন (“অনুপ্রেরণা” মানে কিন্তু এটা নয় যে অন্য কারও কাজ কপি করা) 
  • প্রতিটি টপিকের পপুলারিটি একটি অন্যটির সাথে কেমন সেই মানদণ্ড করতে গুগল ট্রেন্ডসে আপনার লিস্ট টি ইউজ করুন।

৩. প্রেপ

একবার আপনার অডিয়েন্স এবং তাদের ইন্টারেস্টগুলো ইস্টাব্লিশড হয়ে গেলে, আপনি এখন আপনার আইডিয়াগুলো নোট ডাউন শুরু করুন। যদিও আমাদের কাছে অ্যাকচুয়াল ডিজাইনের বিষয়ে খুব বেশি আইডিয়া নেই কারণ এগুলো খুব বেশি পরিবর্তনশীল, আমরা আপনার কাজের ফরম্যাট এবং ক্লিন আপ করার জন্য কিছু গাইডেন্স প্রোভাইড করতে পারি:

  • শুধুমাত্র হাই-রেজ ইমেজগুলো আপলোড করুন (প্রোডাক্ট এর উপর ভিত্তি করে মিনিমাম রিকোয়ারমেন্ট পরিবর্তিত হয়)
  • পেইন্টিং বা স্টেনসিলের জন্য:
  1. যে কোনও প্রকার পেন্সিল মার্ক অথবা ভুলগুলো মুছে ফেলুন  
  2. পেপার ব্যাকগ্রাউন্ড রিমুভ করুন 
  3. স্যাচুরেশন এবং এডজাস্টিং লেভেল গুলোকে বাম্প করুন
  • বিভিন্ন টেম্পলেট জন্য আপনার আর্টওয়ার্কটি এডজাস্ট করুন। নিচে দেয়া টাইপগুলো কনসিডার করুন এবং স্পেসিফিক ডাইমেনশনগুলোর জন্য গিয়ারলঞ্চ ডিজাইনার টুলসটি চেক করুন:
  1. স্কয়ার (যেমন টট বাগস এবং থ্রো পিলো)
  2. ভার্টিক্যাল (ফোন ক্যাসেস এবং পোস্টার)
  3. হরিজেন্টাল (পিলো ক্যাসেস এবং ফ্ল্যাগ)

৪। মার্কেট ইট

মার্কেটিং শুধুমাত্র অ্যাড রান করার চেয়েও আরও অনেক বেশি কিছু। এটি নিয়মিত ইন্টারেকশন এবং এনগেজমেন্ট এর মাধ্যমে একটি লয়্যাল কমিউনিটি গড়ে তোলার এবং আপনার ব্র্যান্ডের আইডেন্টিটি রেগুলার রাখার বিষয়ে আপনাকে সহায়তা করবে। এটি প্রসেস করার জন্য নিজেকে মাল্টিপল সোশ্যাল চ্যানেলে ছড়িয়ে দেওয়ার পরিবর্তে, এমন এক বা দুটি সোশ্যাল মিডিয়া দিয়ে শুরু করুন যেখানে আপনি নিজের অডিয়েন্সদের অবশ্যই খুব বেশি কানেক্ট থাকেন।

কমিউনিটিগুলো গড়ে উঠতে করতে টাইম এবং এফোর্ট নেয় তবে প্রথমদিকে বিষয়গুলো বেশ ধীরে ধীরে প্রসেস হয়। এর মধ্যে আপনার এফোর্টস সাপ্লিমেন্ট করতে, সেলস ড্রাইভ করার জন্য অ্যাড ইউজ করুন। 

আপনার মার্কেটিং এফোর্টস তিনটি ধাপে পরবর্তী স্টেপে নিয়ে যেতে পারবেন: বিফোর , ডিউরিং এবং আফটার।

আইটেমটি সেল করার আগে:

  • এক ঝলক উঁকি দিয়ে এক্সাইটমেন্ট ক্রিয়েট করুন। এটি কনভার্সেশনটি খুব আর্লি শুরু হয় এবং আপনাকে বিহাইন্ড দ্যা সীন এ থেকে পোস্ট করার সুযোগ দেয়। 
  • আপনার কাজ কখন এভেইলেবল হবে তা ডিটেইলস প্রোভাইড করুন।
  • আপনার ফলোয়ারদের ওপিনিয়ন জানার মাধ্যমে কনভার্সেশন শুরু করুন।
  1. “পরবর্তীতে আমার আর কী ক্রিয়েট করা উচিত?”
  2. আপনি একটি মগ উপর কি ডিজাইন দেখতে চান? “
  3. “আপনি একটি টট ব্যাগে কী চান?”
  • আপনাকে ইন্সপায়ার করে বা আপনার ব্র্যান্ডের সাথে এলাইন হয় এমন জিনিসগুলোর ছবি পোস্ট করুন।
  • আপনার এডিটিং ওয়ার্কস এর লাইভ ভিডিও করুন।

আইটেমটি সেল করার সময়

  • একটি “উন্মোচন” পোস্ট শেয়ার করুন।
  • বিভিন্ন প্রোডাক্টের উপর আপনার ডিজাইন এর প্রদর্শন করুন।
  • পটেনশিয়াল অডিয়েন্সদের এটেনশন ড্র করতে হ্যাশট্যাগ ইউজ করুন
  1. Example: Cat-related design = #cats #catlovers #catpics
  • ভিজিটর্সদের পারচেজ করার বিষয়টি সহজ, সেটা যে কোনো প্লাটফর্মেই হোক। 
  1. ফেসবুক + টুইটার: আপনার পোস্টে ইউআরএল এড করুন
  2. ইনস্টাগ্রাম: যেহেতু ইনস্টাগ্রাম পোস্টগুলোর ক্ষেত্রে এখনও লিঙ্কগুলো হোস্ট করা সম্ভব হয় না , তাই আপনার পোস্টে কিছুটা বা টিনিয়রল এড করুন। আপনার প্রোফাইলে আপনার স্টোর লিঙ্ক বা লেটেস্ট আইটেম টির লিঙ্কও থাকা এড করে দিতে পারেন। আরও টিপস এর জন্য আমাদের ইনস্টাগ্রাম গাইডটি ফলো করুন।

আইটেমটি সেল করার পরে:

  • প্রোমো কোড এবং লিংকগুলো শেয়ার করুন (আপনার প্রোমো রান করার কোনও স্পেসিফিক কারণ আছে কিনা তা সিউর হন বা অন্যথায় আপনার ব্র্যান্ডটির ভ্যালু সস্তাভাবে রিপ্রেজেন্ট হওয়ার রিস্ক আছে)।
  • প্রিভিয়াস কাজ বা “থ্রোব্যাকস” শেয়ার করার বিষয়টি কন্টিনিউ করুন।
  • আপনার কনটেন্ট মিক্স আপ করুন 
  1. আপনার কাজের ম্যাক্রো শট
  2. বিহাইন্ড দ্যা সীন
  3. রিয়েল ওয়ার্ল্ড বেস আপনার প্রোডাক্ট 
  4. ইনস্পিরেশন 
  5. সুন্দর এবং আই-ক্যাচিং ছবি 
  • ইনফ্লুয়েন্সারদের মাধ্যমে আপনার কাজ শেয়ার করুন 
  1. হাইপারমার্কেট প্লেসগুলোর মধ্যে একটি হলো এটি যা যা আপনাকে ইনফ্লুয়েন্সারদের সাথে কানেক্টেড করতে পারে।
  2. অর্গানিকভাবে রিচ করার চেষ্টা করুন এবং আপনার কাজ শেয়ার করার জন্য অফার করুন। আপনি যদি পারেন তাহলে একটি হ্যান্ডরিটেন নোটের মতো পার্সোনাল টাচ ইনক্লুড করতে পারেন।
  3. যখন কেউ আপনার কাজকে ফিচার্ড করে তখন কনটেন্ট পুনরায় শেয়ার করুন।
  • আপনার অডিয়েন্স গ্রও করার জন্য নতুন ওয়েতে টেস্ট করুন :
  1. কমেন্টস গিভওয়েস 
  2. ট্যাগ ফ্রেন্ডস গিভওয়েস 
  3. আপনার অডিয়েন্সদের কাছ থেকে আপনার নেক্সট প্রোডাক্ট এর জন্য ভোট নিন

৫।  ট্র্যাক এন্ড এনালাইজ

যদিও গিয়ারলঞ্চ কার্যত ইনভেন্টরি ঝামেলাগুলো সরিয়ে দেয়, আপনার সেলস হিস্ট্রি বুঝে আপনার বিজনেসকে আরও বাড়াতে সহায়তা পারে।

  • কোন প্রোডাক্টটি ভাল সেল হচ্ছে তা ট্র্যাক করুন এবং ওই রিলেটেড প্রোডাক্ট আরো ক্রিয়েট করুন।
  • ছুটির ক্যালেন্ডার ক্রিয়েট করার বিষয়ে একটিভ হন। থিমযুক্ত প্রোডাক্ট এবং ক্যাম্পেইন কখন ক্রিয়েট করা শুরু করা দরকার তা আপনি খুব সহজেই জানতে পারবেন ।
  • নির্দিষ্ট ইভেন্টগুলোর এরাউন্ডে সেলস এর জন্য স্পাইকগুলো সার্চ করুন যাতে আপনি জানেন যে কোনটিতে আরও বেশি সময় ইনভেস্ট করা প্রয়োজন।

Subscribe To Our Newsletter

Get updates and learn from the best

More To Explore

Hot selling T-shirt by Mohammad Raihan

Hot selling T-shirt (coffee).Gift for all members. https://drive.google.com/file/d/1aajUi1bjqmPFaCQJeH5InVzNuW0cIBHp/view?usp=sharing