GOOGLE TAG MANAGER: AN EASY STEP-BY-STEP GUIDE

Share This Post

Share on facebook
Share on linkedin
Share on twitter
Share on email

গুগল ট্যাগ ম্যানেজার এন ইজি স্টেপ-বাই-স্টেপ গাইড 

গুগল ট্যাগ ম্যানেজার কি?

গুগল ট্যাগ ম্যানেজার (জিটিএম) হলো মার্কেটারদের জন্য তৈরী একটি মার্কেটিং টুল যা দিয়ে ওয়েবসাইট এবং মোবাইল এ্যাপের  ভ্যারিয়াস মার্কেটিং এবং অ্যানালিটিকস ট্যাগ্সগুলো ডেপ্লয় এবং ম্যানেজ করা হয় ।

গুগল ট্যাগ ম্যানেজার কি আমার গুগল অ্যানালিটিক সে রিপ্লেস করতে পারবে?

না, এটা পারবেন না। জিটিএম আসলে আরও ভাল, আরও স্পেসিফিক ডেটা দিয়ে গুগল অ্যানালিটিক্সের (জিএ) সাথে একসাথে দুর্দান্ত কাজ করে।

আমি কেন গুগল ট্যাগ ম্যানেজার ইউজ করব?

জিটিএম ব্যবহার করার অনেক বেনিফিট আছেঃ

 সিম্প্লিসিটি:

জিটিএম “কন্টেইনার কোড” হচ্ছে একটি সিঙ্গেল কোড যা আপনার ওয়েবসাইট এর সব পেইজে প্লেস করা থাকবে। এটি লিটেরেলি কন্টেইনার এর মতো কাজ করে যেখানে সিভারেল মার্কেটিং এবং অ্যানালিটিক্যাল ট্যাগ গুলো স্টোর এবং ডিপ্লয় করা হয় যেন মার্কেটার অল্প ক্লিক এর মাধ্যমে যেকোনো ট্যাগ ক্রিয়েট এবং ম্যানেজ করতে পারেন।

স্পীড:

জিটিএম আপনার ওয়েবসাইটের কোডের সাথে হস্তক্ষেপ করার প্রয়োজনীয়তা হ্রাস করে, সহজেই যা কিছুক্ষণের মধ্যে টেস্ট করতে এবং স্থাপনের ক্ষেত্রে সহায়তা করে।

কাস্টমাইজেশন :

জিটিএম এর কাছে ওয়াইড এরে অফ বিল্ট-ইন ট্যাগ্স এবং ফাংশনস আছে যার অর্থ হচ্ছে আপনি অ্যাডভান্সড ট্রাকিং কাস্টমাইজড করতে পারবেন দ্রুত এবং সহজভাবে ।

ইন্সটলিং গুগল ট্যাগ ম্যানেজার

নিচের স্টেপ গুলো ফলো করেন জিটিএম ইনস্টল করার জন্য:

স্টেপ ১: জিটিএম ওয়েবসাইটে যান এবং আপনার গুগল ইউজারনেইম এবং পাসওয়ার্ড এর সাহায্যে লগ ইন করুন।

স্টেপ ২: যদি আপনি জিটিএম এ নতুন হয়ে থাকেন তাহলে আপনাকে অটোমেটিক্যালি প্রোমোট করা হবে একাউন্ট ক্রিয়েট করার জন্য।

নোট: আপনি একটি সিঙ্গেল গুগল একাউন্ট দিয়ে মাল্টিপল জিটিএম একাউন্ট খুলতে পারবেন কিন্তু বেশিরভাগ বিজনেস টেন্ড একটি একাউন্ট মেইনটেইন করে।

স্টেপ ৩: আপনার  জিটিএম একাউন্টের নাম এন্টার করুন ( আপনার কোম্পানির নাম), “Share data anonymously with Google and others ” এই চেকবক্স টি সিলেক্ট করুন (যদি আপনি বেঞ্চমার্কিং এনাবল করতে চান), তারপর “Continue” ক্লিক করুন।

স্টেপ ৪: আপনার কন্টেইনার এর নাম এন্টার করুন ( আপনার ওয়েবসাইট এর নাম ), আপনি কোথায় আপনার কন্টেইনার ইউজ করতে চান সেটা সিলেক্ট করুন (I’ve chosen to use mine on a website) তারপর “ক্রিয়েট” ক্লিক করুন ।

স্টেপ ৫ঃ টার্মস অফ সার্ভিস এক্সেপ্ট করুন। কনগ্রাটস-আপনি একটি নতুন জিটিএম অ্যাকাউন্ট এবং কন্টেইনার ক্রিয়েট করেছেন ।

স্টেপ ৬ঃ এটা আপনার  জিটিএম কন্টেইনার ট্যাগ।

সাইট, এই স্টেপ কমপ্লিট করতে কিছু মাইনর টেকনিক্যাল হেল্প লাগতে পারে। আপনার ওয়েবসাইটের প্রতিটি পেইজে  জিটিএম কোড কপি এবং পেস্ট করুন সাথে কন্টেইনার ট্যাগ। opening <body> tag অপশন এ ইমিডিয়েটলি পরে এটি প্লেস করুন।

গিয়ারলঞ্চ পার্টনার:

আপনার ড্যাশবোর্ড থেকে সিম্পলি “Store Settings ” ওপেন করুন, তারপর স্ক্রল ডাউন করুন “ডিফল্ট পিক্সেলস ” সেক্শনে যেখানে আপনি আপনার নতুন জিটিএম কন্টেইনার ট্যাগ এন্টার করতে পারবেন।

কোড কপি এবং পেস্ট করার পর “ওকে” ক্লিক করুন এবং আপনি আপনার  জিটিএম ড্যাশবোর্ড দেখতে পারবেন।

ইন্ট্রোডাকশন টু জিটিএম ট্যাগ্স এন্ড ট্রিগার

জিটিএম এর দুটো মুল কম্পোনেন্ট আছে : “ট্যাগ” এন্ড “ট্রিগার” 

  • ট্যাগঃ জিটিএম কে জানান যে আপনি জিটিএম থেকে কি চান।  ফর এক্সাম্পল, “send a Page View to Google Analytics”
  • ট্রিগারস ঃ জিটিএম কে জানান যখন আপনি একটি ট্যাগ বাদ দিতে চাচ্ছেন। ফর এক্সাম্পল, “anytime someone visits a page.”

নিচের এক্সাম্পলটি ফলো করুন, জিটিএম-এ প্রতিবারই যখন কেউ আমাদের নতুন সাইট, MyCompanyWebsite.com -এ ভিজিট করে তখন জিএ-তে একটি পেজ ভিউ রিপোর্ট করে । 


স্টেপ ১: জিটিএম ড্যাশবোর্ডের লেফট হ্যান্ড মেনু থেকে  “Tags” এ ক্লিক করুন এবং তারপর “New” ক্লিক করুন।

স্টেপ ২: যে প্রোডাক্ট এর জন্য আপনি ট্যাগ ক্রিয়েট করতে চান সেই প্রোডাক্টটি চুজ করুন। জিএ অনেক প্রোডাক্টের মধ্যে একটি যা জিটিএম এর সাথে ডিপলি ইন্টিগ্রেটেড- সিলেক্ট করার জন্য জাস্ট সিম্পলি ক্লিক করুন।

স্টেপ ৩: আপনার অপশন আছে “Universal Analytics ” বা “Classic Google Analytics” এর মধ্যে চুজ করার। ইউনিভার্সাল এনালিটিক্স হলো নিউ গুগল অ্যানালিটিকস এর অপারেটিং স্ট্যান্ডার্ড।  এই উদাহরণে আমরা “Universal Analytics” চুজ করবো এটাও একটি একটি ডিফল্ট সিলেকশন। “Continue” ক্লিক করুন । 

স্টেপ ৪ঃ ক্লিক “কন্টিনিউ” করার পর আপনাকে জিটিএমকে আপনার গুগল অ্যানালিটিক্স ট্র্যাকিং আইডি (ইউএ আইডি) ইউজ করে পাওয়া পেজ ভিউ ইনফরমেশনটি কোথায় পাঠাতে হবে তা জানাতে হবে।।  এই এক্সাম্পল এর জন্য আমরা “উএ আইডি-১১১১১১১১-১” ইউজ করব। আপনার অ্যাকচুয়াল ইউএ আইডি খুঁজে পেতে যদি হেল্প লাগে তাহলে, এখানে যান। 

জিটিএম পেজ ভিউকে ট্র্যাকের ধরন হিসেবে ডিফল্ট করে তবে এটি ইভেন্টস, ট্রানজেকশন , সোশ্যাল , টাইমিং , ডেকোরেট লিংক, ডেকোরেট ফর্ম গুলো এবং তাদের সম্পর্কিত প্যারামিটার এর জন্য ট্র্যাকিং এর অফার করে।

স্টেপ ৫: এখন আমাদের ট্রিগার ডিফাইন করার সময় যেন জিটিএম বুঝতে পারে কখন আমাদের ট্যাগ ফায়ার করতে হবে। 

যখনই কেউ আমাদের পেজ ভিজিট করবে তখন আমরা আমাদের ট্যাগ ফায়ার করতে চাই, তাই বিল্ট-ইন ট্রিগারস লিস্ট থেকে “All Pages” সিলেক্ট করতে হবে। তারপর ক্লিক করুন “Create”।

স্টেপ ৬: জিটিএম আপনাকে প্রোমোট করবে আপনার ট্যাগের একটি  নাম দেয়ার জন্য। ট্যাগ গুলো এলফাবেটিক্যাল অর্ডারে অর্গানাইজড থাকে তাই আপনার ট্যাগ গুলোকে গ্রুপ করে রাখাটাই গুড প্রাকটিস যেন পরে খুব সহজেই খুঁজে বের করা যায়। গুগল অ্যানালিটিকস ট্যাগ্স, উদাহরণ স্বরূপ, সবগুলো ট্যাগ গ্রুপ করা “GA – .” এর মাধ্যমে।

স্টেপ ৭: উই আর অলমোস্ট ডান ! জিটিএম “সেভ” ক্লিক করার পর সাথে সাথেই আপনার ট্যাগ পাবলিশ করে না । এর পরিবর্তে, আপনি আপনার ট্যাগের ডিটেলস কনফার্ম করতে পারবেন এবং লাইভ হওয়ার জন্য অপ্রকাশিত পরিবর্তনগুলোর সংখ্যা দেখতে পারবেন (যা উপরের ডানদিকে অবস্থিত)।

যখন আপনি রেডি ,তখন আপনার ট্যাগ লাইভ হওয়ার জন্য পুশ করতে “পাবলিশ” বাটন এ ক্লিক করুন।

এভোয়েড ডুপ্লিকেটিং ডাটা

আপনার গুগল অ্যানালিটিকস কন্ট্রোল করার জন্য যদি আপনি জিটিএম ইউজ  করে থাকেন (রেকমেন্ডেড ) তাহলে সব এক্সিস্টিং গুগল অ্যানালিটিকস ট্রেকিং কোড গুলো আপনার ওয়েবসাইট থেকে অবশ্যই রিমুভ করে দিবেন।

ইন্ট্রোডাকশন টু জিটিএম ভ্যারিয়েবলস

  • ভেরিয়েবলগুলো ট্যাগস,ট্রিগার এবং অন্যান্য ভেরিয়েবলগুলো কে দ্রুত পুনরুদ্ধার করতে পারে এমন ভ্যালুগুলো স্টোর করে ইফিসিয়েন্সি ইম্প্রুভ করতে পারে। উদাহরণস্বরূপ, “গুগল অ্যানালিটিক ইউএ আইডি = ইউএ-১১১১১১১১-১” । এখন সবসময় আপনার ইউএ আইডিতে ম্যানুয়ালি লোকেটিং এবং প্লাগিং না করে আপনি সিম্পলি অ্যাপ্রোপ্রিয়েট ভ্যারিয়েবল এন্টার করতে পারেন। 

রিকল.আমাদের এই স্টেপ গুলো ফলো করতে হয়েছিল আমাদের “GA – Page View” ট্যাগ ক্রিয়েট করার জন্য।

এটি গুগল অ্যানালিটিকস এর ট্যাগ গুলোর মধ্যে একটি যা আপনি অনিবার্যভাবে সেট-আপ করবেন। সব সময় সেইম অসুবিধাজনক স্টেপ এভোয়েড করার জন্য আপনি ” ইউএ ট্রাকিং আইডি” ভ্যারিয়েবল ক্রিয়েট করতে পারেন। 


স্টেপ ১:  tagmanager.google.com এ যান এবং লগ ইন করুন।  লেফ্ট সাইড মেনু লিস্ট থেকে ভ্যারিয়েবলস খুঁজে বের করুন এবং সিলেক্ট করুন।

স্টেপ ২: নেক্সট, স্ক্রল করে পেইজের বটমে “User-Defined Variables” সেকশন এ যান এবং “নিউ” তে ক্লিক করুন।

স্টেপ ৩: আপনি যে টাইপ এর ভ্যারিয়েবল ক্রিয়েট করতে চান সেটা সিলেক্ট করুন। আমরা যেহেতু চাই যে আমাদের ভ্যারিয়েবল সব সময় সেইম  ভ্যালু  ডিফাইন করবে (আমাদের ইউএ-আইডি), সেজন্য  আমরা “কনস্ট্যান্ট ” সিলেক্ট করবো। 


স্টেপ ৪: আপনার ভ্যারিয়েবল এর জন্য ভ্যালু এসাইন করুন। এই ক্ষেত্রে এইটা আপনার ইউএ আইডি। তারপর “Create Variable” বাটনে ক্লিক করুন।

স্টেপ ৫: নেক্সট, নেইম এন্ড সেভ ইওর নিউ ভ্যারিয়েবল।

স্টেপ ৬: এখন যখন আপনি আপনার ফার্স্ট ভ্যারিয়েবল ক্রিয়েট করে ফেলেছেন, তাহলে চলুন “GA – Page View” ট্যাগে এটি টেস্ট করে দেখি যেহেতু এটি এই ভেরিয়েবলের ইনফরমেশন ইউজ করে।।

“ট্যাগ ” ট্যাবে ফিরে গিয়ে “জিএ – পেইজ ভিউ” ট্যাগ ওপেন করতে হবে। 

যেখানে আপনি “ইউএ- ১১১১১১১১-১” এন্টার করেছেন সেই ফিল্ডে স্ক্রল ডাউন করুন এবং তা ডিলিট করে দিন।  তারপর ভ্যারিয়েবল আইকন এ ক্লিক করুন ভ্যারিয়েবলস এর লিস্ট পাওয়ার জন্য যেগুলো আপনি ইউজ করতে পারবেন। যে ভ্যারিয়েবলটা মাত্রই ক্রিয়েট করলেন সেখানে ক্লিক করুন।

স্টেপ ৭:  আপনার চেঞ্জেস সেভ করুন এবং “পাবলিশ” এ ক্লিক করুন।

নোট: আপনি যদি কোনো “ভ্যারিয়েবল” ট্যাব এর ভ্যারিয়েবল চেঞ্জ করেন তাহলে চেঞ্জেস রিফ্লেক্ট করবে সব ট্যাগ, ট্রিগারস এবং অন্য ভ্যারিয়েবলস এ যেখানে এটা ইউজ করা হয়েছে।

হাউ ডু আই মেইক জিটিএম ওয়ার্ক ফর মি?

আমাদের টিপস হচ্ছে আপনি যেটা মেজার করতে চান সেইটা দিয়ে অলওয়েজ স্টার্ট করা। জিটিএম এর লার্নিং কার্ভ আছে কিন্তু ইন রিটার্ন আপনাকে আপনার এফোর্টস দিয়ে বেটার অপ্টিমাইজ করতে হবে। 

স্টার্ট স্মল।  ফর আইডিয়াস, জিটিএম আপনার জন্য যেভাবে কাজ করতে পারে তার দুটো ওয়ে দেয়া হলো :

  • যেহেতু জিটিএম আপনাকে অলমোস্ট সব  ইভেন্ট অ্যাকশন ট্র্যাক করার এবিলিটি দিয়েছে, আপনি ওই ইভেন্ট গুলোকে ইউজ  করতে পারেন অডিয়েন্সদের কাস্টম রি-টার্গেটিং করে। 
  • যদি আপনি ওয়াইড এডভার্টাইজিং করেন তাহলে স্পেসিফিক কননভার্সেশন ট্র্যাক করা ডিফিকাল্ট হয়ে যায়।  কিন্তু জিটিএম এর সাহায্যে সব এডভার্টাইজিং প্লাটফর্মের যে গোল শুধু ট্র্যাক করতে চান সেটা ট্র্যাক করতে পারবেন ট্যাগ্স এবং রুলস কনফিগার এর মাধ্যমে। 

মনে রাখবেন, কিছু যদি না বুঝে থাকেন তবে আমরা কিন্তু আপনাকে এখানে সহায়তা করতে এসেছি।

Subscribe To Our Newsletter

Get updates and learn from the best

More To Explore

10 TIPS FOR NAMING YOUR BLOG OR BUSINESS

আপনার ব্লগ বা বিজনেস নেমিং এর জন্য ১০ টিপস যখন কোনো বিজনেস বা ব্লগ শুরু করা হয় তখন অন্ট্রোপ্রেনারদের জন্য সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ যে সিদ্ধান্ত নিতে

8 EASY TIPS FOR WORKING FROM HOME SUCCESSFULLY

সফলভাবে বাড়ি থেকে কাজ করার ৮ টি সহজ টিপস ২০২০ সালে ওয়ার্ল্ড ওয়াইড গ্লোবাল প্যানডেমিক এর কারণে রিমোট ওয়ার্কারদের পরিমাণে ইনক্রিজ হয়েছে এবং অফিসে কাজ