COPYRIGHT AND TRADEMARK BASICS

Share This Post

Share on facebook
Share on linkedin
Share on twitter
Share on email

কপিরাইট এবং ট্রেডমার্ক বেসিক

ডিসক্লেইমার

যদিও আমরা কিছু সার্টেইন লিগ্যাল ইস্যু এর বিষয়ে নলেজেবল, তবে আমরা কিন্তু লইয়ার নই। নীচের ইনফরমেশনগুলো শেয়ার করার উদ্দেশ্য হলো আপনাকে কিছু জেনারেল গাইডলাইন সম্পর্কে জানানো এবং এওয়ার করা। আপনার যদি কোনও এডিশনাল কোয়েশ্চান থাকে তবে আমরা আপনার ওই স্পেসিফিক কর্নারগুলো সম্পর্কে এক্সট্রা রিসার্চ করার জন্য রেকমেন্ড করি বা আরও ইনফরমেশন এর জন্য কোন লইয়ার সাথে কনসাল্ট করার ।

আপনি যখন আপনার অনলাইন বিজনেসের জন্য ডিজাইনিং শুরু করেন, নিঃসন্দেহে আপনি কনফিউজিং লিগ্যাল প্রবলেম গুলো দেখতে পাবেন। “আমি কি এই ইমেজটি ইনস্পিরেশন এর জন্য ইউজ করতে পারি?” অথবা “ইন্টারনেট থেকে একটি পাওয়া একটি উদ্ধৃতি সম্পর্কে কীভাবে জানবো?”

কপিরাইট এবং ট্রেডমার্ক লঙ্গনের জন্য বেশ কড়া জরিমানা হতে পারে সাথে আদার পেনাল্টিজ সহ। আপনি ডিজাইন এবং মার্কেটিং শুরু করার আগে এখানে কপিরাইট এবং ট্রেডমার্ক গাইডলাইন সম্পর্কে আপনার চারটি বিষয় জানা অনেক বেশি দরকার কারণ সেগুলো আপনার ডিজাইনের সাথেই রিলেটেড।

১. অরিজিনাল ডিজাইন ক্রিয়েট করা একটি বেশ ভালো প্র্যাক্টিস 

কপিরাইট এবং ট্রেডমার্ক প্রব্লেমগুলো এড়ানোর সর্বোত্তম উপায় হল অরিজিনাল ডিজাইন ক্রিয়েট করা। ধরুন আপনি এমন কোন একটি ডিজাইন নিয়ে আসছেন যা সত্যিই আপনার নিজের করা এবং আপনি এটি অন্য কোনো কিছুকে বেসড করে ক্রিয়েট করেননি অথবা এটি কোনও এক্সজিস্টিং ডিজাইনের সিমিলিয়ার করে দেখিয়েছেন তবে আপনি প্রিটি কম্পোর্ট্যাবল ফীল করতে পারেন যে এটি কারও ট্রেডমার্ক বা কপিরাইট লঙ্ঘন করছে না। আপনার কাছে ইউনিক এমন কিছু নিয়ে আসা বেশ কঠিন হতে পারে, ইস্পেশালি মার্কেটে এখনো প্রচুর ডিজাইন আছে, কিন্তু এখনও আপনার প্রোডাক্টগুলোতে সেল করার জন্য একটি ইউনিক ডিজাইন ক্রিয়েট করা সম্ভব। আপনি যখন এই বিষয়গুলো ভালোভাবে খেয়াল করছেন করেন, তাহলে আপনার কোনও কপিরাইট বা ট্রেডমার্ক ভায়োলেশন এর সমস্যায় পড়ার ঝুঁকি অনেক কমে যায়। 

২. কপিরাইট এবং ট্রেডমার্ক এক জিনিস নয়।

অনেকেই “কপিরাইট” এবং “ট্রেডমার্ক” দুটোকে ইন্টারচেঞ্জেবলী ভাবে ইউজ করে থাকেন তবে টার্মগুলো আইডেন্টিক্যাল নয়। ইনশর্ট, ট্রেডমার্ক আসলে কোনো নাম, সিম্বল বা কোনো টার্মসের জন্য ইউজ করা হয়। মুভি , বই, পেইন্টিং, গান, ওয়েব কনটেন্ট এবং কোরিওগ্রাফির মতো মেইন ক্রিয়েটিভ কাজের জন্য কপিরাইট ইউজ করা হয়। আপনি যদি কোনও পারমিশন ছাড়াই কোনও প্রোডাক্টের উপর কোনও কোম্পানির নাম ইনপুট করেন, তার মানে আপনি তাদের ট্রেডমার্ক ভায়োলেট করছেন। সং লিরিক্স ? এটি একটি কপিরাইট ভায়োলেশন। কপিরাইট এবং ট্রেডমার্ক সম্পর্কে আরও ইনফরমেশন এর জন্য, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের কপিরাইট অফিস এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের পেটেন্ট এবং ট্রেডমার্ক অফিসে ভিজিট করুন কাইন্ডলি।

৩. কোন প্রোডাক্ট ডিজাইনের সময় রুলসগুলো সম্পর্কে জানুন।

আপনি যেখানে খুশি পতাকা, জাতীয় প্রতীক, পলিটিক্যাল ফিগার্স লাইকনেস এবং আর্মস কোট ইউজ করতে পারেন। এগুলো কপিরাইট বা ট্রেডমার্ক প্রোটেক্টেড নয় এবং মেবি আপনি এগুলো শার্টে ইনপুট করার বিরুদ্ধে কোনো লস্যুট ফেস করতে হবে না। যদি এই জিনিসগুলোর মধ্যে কোনো ফেমাস পিকচার্স থাকে তবে সেই ইমেজটি ইউজ করবেন না। পিকচারে থাকা ইমেজগুলো ইউজের জন্য ফেয়ার হতে পারে, তবে ছবিটি নিজে নিজেই প্রোটেক্টেড হয়ে যাবে। এছাড়া আপনি ফেমাস, রিকোগনাইজেবল কেরেক্টর্স গুলো কখনোই আপনার শার্ট বা অন্যানো ডিজাইনে ইউজ করবেননা।  এই সবগুলো প্রোটেক্টেড এবং আপনি লিগ্যাল অ্যাকশন এর মুখোমুখি হতে পারেন।

যদিও এর ব্যতিক্রম আছে। “ফেয়ার ইউজ ” প্যারোডিগুলোর জন্য এলাউড , সেক্ষেত্রে যদি আপনি কোনও প্যারডি ডিজাইন তৈরি করেন তাহলে আপনি জেনারেলি ফেমাস কেরেক্টর্স গুলো ইউজ করে এগিয়ে যেতে পারেন কিন্তু এই বিষয়গুলো অন্যরা ঠিকি রিকোগনাইজ করতে পারে। আপনি যা করছেন তা ক্লিয়ার করুন এবং খুব অফেন্সিভ বিষয়গুলো এড়িয়ে যান। প্যারোডি অপুর্চুনিটি শুধুমাত্র মানুষ এবং ক্যারেক্টার এর জন্য নয়। এটি লোগোর  মতো জিনিসগুলোতেও এক্সটেডেন্ট। একটি প্যারোডি ক্রিয়েট করার সময়, মার্কেটে বিভ্রান্তি, ভুল বা প্রতারণার সম্ভাবনা কমানোর জন্য, আন্ডার লিগ্যাল অথরিটি ট্রেডমার্ক প্রটেকশন আছে তা খেয়াল করা অনেক বেশি গুরুত্বপূর্ণ। পেরোডির জন্য একটি এনথিসিস অফ কনফিউশন ক্রিয়েট করা প্রয়োজন যাতে অরিজিনাল কাজটিকে কোন রুফ মোক না করেই এটি একটি স্পষ্ট ডিফারেন্স ক্রিয়েট করে যে এটি অরিজিনাল কাজ এর সাথে কোনোরূফ রিলেটেড নয়। আপনি যদি ইন্টারনেটে পাওয়া কোনও ইমেজ বা কোনও ফেমাস কোটস ইউজ করার প্ল্যান করে থাকেন তবে কিছু ক্ষেত্রে সেগুলো ইউজ করা যেতে পারে। বিফোর ইউজ, এগুলো সোর্স কি, কোথা থেকে এসেছে এবং কিভাবে তাদের প্রপারলি ক্রেডিট দিতে হবে তা খুব ভালোভাবে শিখুন এবং শিউর হন।

৪. এটি কি ট্রেডমার্ক বা কপিরাইট ইনফ্রেমেন্ট? এই ফ্যাক্টর গুলো জানা থাকলে আপনি নিজেকে প্রটেক্ট করতে পারবেন। 

ইন্টারনেটে আপনি যে ইমেজটি পেয়েছেন সেটি হয়তো একটি গ্রেট ডিজাইন তৈরি করতে পারে এবং হয়তো আপনার প্রিয় এক্টরের কোটস টি সত্যিই আপনার কথা বলে। তবুও, আপনি যদি সঠিক ওয়েতে এটি না মেইনটেইন করেন তাহলে আপনার ডিজাইনে এই জিনিসগুলো ইউজ করাটা আপনাকে প্রব্লেম এর মধ্যে ফেলতে পারে। ফর এক্সাম্পল, ফেমাস কোটসগুলো এর ক্ষেত্রে যদি আপনি সেগুলো পারপেক্টলি রাইট দেন তাহলে সাধারণত ইউজের সব ক্ষমতাই আপনার আছে। অনেক ছোট প্রিন্টে কোটস করা ফেমাস পিপল এর নাম ডিজাইনে ইউজ করুন বা এটি আপনার ওয়েবসাইটে প্রোডাক্ট ডেস্ক্রিপশনে এড করুন।

ইন্টারনেট এর ইমেজগুলোর জন্য, এমন কিছু সাইট রয়েছে যা কমার্শিয়াল ইউজের জন্য তাদের ইমেজগুলো অফার করে, যদি ফটো ওনারকে ক্রেডিট দেওয়া হয়। বেশিরভাগ ওয়েবসাইটগুলো এমন অফার করে না, সুতরাং আপনি যদি সেই ইমেজগুলো ইউজ করতে চান তবে সিউর হয়ে নিতে হবে যে আপনি ট্রু ওনারকে খুঁজে পেয়েছেন এবং কমার্শিয়াল উদ্দেশ্যে ইমেজগুলো ব্যবহারের লিখিত অনুমতি পেয়েছেন। এটি আপনাকে লিগ্যাল প্রব্লেম থেকে প্রটেক্ট করতে পারে এবং এটি আপনার ডিজাইনে কোনও ইমেজ ইউজের একমাত্র সেইফ ওয়ে। অ্যাট্রিবিউশন এবং বিভিন্ন লাইসেন্স সম্পর্কিত আরও তথ্যের জন্য ক্রিয়েটিভ কমন্স দেখুন। আপনি আমাদের ৮৫ টি ওয়েবসাইটের তালিকা ইউজ করতে পারেন যা বিনামূল্যে স্টক ইমেজ প্রোভাইড করে

পাবলিসিটি রাইটস কনসিডার করার জন্য, এতে বলা হয়েছে যে কেউ তাদের আইডেন্টিটি কমার্শিয়াল ইউজের জন্য সকল কন্ট্রোল অধিকার রাখে। কেউ যদি মনে করেন যে আপনি তাদের আইডেন্টিটি এমনভাবে ইউজ করেন যাতে তারা কোনো অব্জেকশন করবেনা এবং কোনো কোনো লিগ্যাল ইস্যুও ফেস করতে হবে না। তাই অন্যের কাজ বা কোনো কারো কোটস ইউজ করে কোনো ঝুঁকি নেয়ার চাইতে বরং নিজের ইমেজ ডিজাইন করাটাই বেস্ট অপশন। 

Subscribe To Our Newsletter

Get updates and learn from the best

More To Explore

SUPERCHARGE YOUR SHOPIFY STORE

আপনার শপিফাই স্টোরটিকে সুপারচার্জ করুন গিয়ারলঞ্চ অ্যাপ্ এড করুন এবং একটি ই-কমার্স বিজনেস পরিচালনার জন্য আপনার প্রয়োজনীয় সব কিছুর অ্যাক্সেস দিন  — হাই কোয়ালিটি পিওডি

Baby Onesie

বেবি ওয়ানজি বেস কস্ট     প্রোডাক্ট ইনফরমেশন      আর্ট ওয়ার্ক এন্ড মকআপ     সাইজ গাইড  বেস কস্ট Tier Monthly Unit sale Price