5 TIPS FOR MAKING MONEY WITH PRINT ON DEMAND

Share This Post

Share on facebook
Share on linkedin
Share on twitter
Share on email

প্রিন্ট অন ডিমান্ড এ মানি মেক করার ৫টি টিপস

আপনি কি কোনও অনলাইন বিজনেস শুরু করার বিষয়ে চিন্তা করছেন?অথবা হতে পারে আপনার ইতিমধ্যে একটি ইকমার্স স্টোর আছে তবে পরবর্তীতে কী করবেন তা নিয়ে আপনি নিশ্চিত নন। প্রিন্ট অন ডিমান্ড এমন একটি বিজনেস মডেল যা আপনাকে ইনভেন্টরির কোনও ঝামেলা ছাড়াই বিক্রি শুরু করা সহজ করে তোলে। কাস্টমার রা আপনার ইউনিক এবং মেইন ডিজাইনগুলো থেকে চুজ করতে পারেন এবং তারপরে তারা অর্ডার করতে পারেন এমন বিভিন্ন প্রোডাক্ট থেকে চুজ করতে পারেন।

কিন্তু আপনি কীভাবে আপনার প্রিন্ট অন ডিমান্ড স্টোরকে সাকসেস করবেন?

আপনার অনলাইন স্টোর দিয়ে আপনাকে সাকসেস হতে সাহায্য করার জন্য আমাদের কাছে ৫টি ইউনিক টিপস রয়েছে

টিপস # ১ : অন ডিমান্ড স্টোরে আপনার প্রিন্টের জন্য রাইট নিশ চুজ করুন

আপনি আপনার প্রিন্ট অন ডিমান্ড বিজনেস চালু করার আগে আপনার অডিয়েন্স দের নিয়ে বিবেচনা করা সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। খুব টার্গেটেড নিশ চুজ করে আপনি আপনার বিজনেসের সাকসেসের জন্য সেটআপ করবেন এবং আপনি আরও স্পেসিফিক হবে, আরও ভাল। আপনি স্পেসিফিক  “cats riding llamas in space” বা “cat lady” হিসাবে একটি নিশ চুজ করতে পারেন। এটি আপনাকে খুব সংকীর্ণ অডিয়েন্সদের টার্গেট করতে দেয় এবং ওয়াইড অডিয়েন্সদের কাছে আবেদন করার চেয়ে বেশি জেনেরিক ব্র্যান্ড থেকে আপনাকে আলাদা করে তোলে।

আপনার ফিউচার অডিয়েন্সদের জন্য কিছু আইডিয়া পেতে, আপনাকে আকর্ষণীয় বলে মনে হয় এমন একটি লিস্ট ক্রিয়েট করে শুরু করুন। প্রিন্ট অন ডিমান্ড স্টোরে আপনার জন্য কিছু বিষয় ইরিলিভেন্ট বলে মনে হলেও হতে পারে, যদি তা হয় বিষয়গুলো যথাসম্ভব স্পেসিফিক করুন। তারপরে টুইটার, গুগল ট্রেন্ডস বা ফেসবুকে যান এবং দেখুন ওই বিষয়গুলো সম্পর্কে মানুষজন কী বলছে।

নিজেকে জিজ্ঞাসা করুন:

  • আপনার টপিকগুলো পপুলার ?
  • তারা প্রায়ই আসে?
  • নাকি এগুলো এতই বিরল যে কেউই সেই পার্টিকুলার বিষয়ে সার্চ করছে না?

একবার আপনার নিশ নেরো হয়ে গেলে, আপনি ইতিমধ্যে আপনার নিশে কী বিক্রি হচ্ছে তা দেখতে অ্যামাজনের মতো বড় মার্কেটগুলোতে খুঁজে দেখতে পারেন। তারা কী ধরণের রিভিউ গ্রহণ করছে সেগুলো আপনি দেখতে চান। কেউ যদি ইতিমধ্যে আপনার মনে মনে কিছু সেম প্রোডাক্ট সেল করে থাকে তবে তার মানে আপনি ঠিক। এই বিষয়টা আপনাকে জানতে দেয় যে এই নিশের চাহিদা আছে। “স্পোর্টস” এর মতো প্রশস্ত নিশ গুলোর জন্য কেবল নজর রাখুন কারণ এই ক্ষেত্রে হুট্ করে দাঁড়ানো কিছুটা কঠিন।

টিপস #২: কীওয়ার্ড রিসার্চ

একবার আপনি আপনার নিশকে ডিফাইন করতে পারলে এবং আপনি আপনার স্টোর সম্পর্কে ইন্টারেস্ট ফীল করলে, কিছু সময় নিন এবং এক  কিছু কীওয়ার্ড রিসার্চ করুন।

শুরু করতে আপনাকে যা করতে হবে তা হল কিছু দ্রুত সার্চ করা। গুগল ট্রেন্ডস, গুগল, বা পিন্টারেস্টের মতো সাইটে যান এবং আপনার কীওয়ার্ড টাইপ করুন (eg: cats on lamas) এবং আপনি যে প্রোডাক্ট মার্কেট করতে চান বলে মনে করেন (যেমন: ফোন কেস, টিশার্ট ইত্যাদি) এই সার্চগুলো অনুপ্রেরণার জন্য এবং আপনার অডিয়েন্সদের এবং তারা অনলাইনে কী ধরণের আইটেম খুঁজছে তা জানতে এবং বুঝতে সহায়তা করতে ইউজ করুন।

কীওয়ার্ডগুলি সত্যই আপনার স্টোর যেমন তৈরি করতে পারে বা আবার ভাঙতে পারে। মাঝারি ডিজাইনগুলো যা টপ ডিজাইনার কে সঠিক আকারে কীওয়ার্ড দিয়ে আরও বেশি সেল এনে দেয়।

টিপস #৩: প্রিন্ট অন ডিমান্ড ডিজাইন তৈরি করুন বা আপনার ডিজাইনগুলো তৈরি করতে কাউকে হায়ার করুন

আপনি যদি কোনও গ্রাফিক ডিজাইনার বা দ্রুত শিখতে পারেন তবে আপনি দ্রুত আপ করবেন এবং অচিরেই চলতে পারবেন। অনলাইনে বেশ কয়েকটি ফ্রি ডিজাইনের টুলস রয়েছে যার সাথে আপনি প্রায় প্লে করতে পারেন এবং ডিজাইনে আপনার হাত চেষ্টা করতে পারেন। মনে রাখবেন, আপনি ডিজাইন বেআইনীভাবে ইউজ করতে পারবেন না, তবে আপনি নিজের তৈরি করার সময় সেগুলো অনুপ্রেরণা হিসেবে ইউজ করতে পারেন।

আপনি ডিজাইনার না ? কোনো প্রব্লেম নেই। 

হেভ্ভি লিফটিং করতে আপনি আপনার আমিজিং আইডিয়া নিতে পারেন এবং ডিজাইনারকে হায়ার নিতে পারেন। অনলাইনে এমন বেশ কয়েকটি প্লেস রয়েছে যেখানে আপনি আপনার ধারণাগুলিকে যুক্তিসঙ্গত প্রাইসের জন্য ডিজাইনে রূপান্তর করতে পারেন:

টিপস #৪ : প্রিন্ট অন ডিমান্ড প্রোডাক্ট এ কখনোই ফ্যান আর্ট ডিজাইন ইউজ করবেন না

সিম্পলি স্টেটেড, প্রিন্ট অন ডিমান্ড প্রোডাক্টগুলোতে ফ্যান আর্ট ডিজাইন ব্যবহার করা অবৈধ। কপিরাইটযুক্ত অক্ষর বা ট্রেডমার্কযুক্ত লোগো থেকে প্রাপ্ত আর্ট থেকে দূরে থাকুন। গ্রাফিক ডিজাইনারের কাছ থেকে আপনার নিজের বা কোনও ডিজাইন যা আপনি রিকোয়েস্ট করেছেন তা মেইন ডিজাইনে রাখুন এবং আপনি ভালোভাবে ভালভাবে রান করতে পারবেন।

দুর্ভাগ্যক্রমে, প্রিন্ট অন ডিমান্ড স্টোরগুলোতে দেখতে পাওয়া যায় যে অনেকে তাদের ডিজাইনে ফ্যান আর্ট ইউজ করে। এই স্টোর গুলো অবশেষে রিপোর্ট করা হবে এবং বন্ধ হয়ে যাবে। প্রলুব্ধ করার সময়, আপনি বরং নিজেকে দ্রুত বাইন্ড করে রাখতে পারেন।

টিপস #৫: আপনার স্টোর মার্কেট করুন !

আপনার ডিজাইনগুলো প্রস্তুত হয়ে যাওয়ার পরে, মার্কেটিং শুরু করুন! হট ট্রেন্ডগুলোর জন্য সার্চ করুন এবং আপনার নিশে কম্পেলিং ওয়েতে টার্গেট করার জন্য ডিজাইন করা মার্কেটিং সেট আপ করুন। আপনি যখন কোনও নতুন আইটেম বা ডিজাইন প্রকাশ করবেন তখন ফেসবুক বা ইনস্টাগ্রামে পেইড অ্যাড চেষ্টা করুন। আপনার নতুন স্টোরটি সম্পর্কে ওয়ার্ড আউট পাবলিশ করার উপায় হিসাবে সোশ্যাল মিডিয়া ইউজ করুন!

আপনি সোশ্যাল মিডিয়া প্লাটফর্মে অ্যাড চালাতে পারেন এবং প্রাইমারি সেল এর কিছু জন্য ডিসকাউন্ট দিতে পারেন। এনগেজমেন্ট  গ্রুপ গুলোতে এড হওয়ার জন্য সার্চ করুন অথবা আপনার ব্র্যান্ড বা স্টোরের জন্য স্পেসিফিক একটি হ্যাশট্যাগ নিয়ে রিসার্চ করুন।

হ্যাপি কাস্টমারদের কাছে সেল এর জন্য টেস্টমনিয়াল ছেড়ে উৎসাহিত করুন। নতুন কাস্টমাররা কেনার আগে প্রায়ই অতীত কাস্টমারদের এক্সপেরিয়েন্স খুঁজে থাকেন। 

আপনার স্টোরটির মার্কেটিং এর ক্ষেত্রে সম্ভাবনা সীমাহীন।

গিয়ারলঞ্চ প্ল্যাটফর্মটি ইউজ করার একটি সুবিধা হল আপনাকে কাস্টমার সার্ভিস সম্পর্কে চিন্তা করতে হবে না। কোনও কাস্টমার এর যদি কোনও অর্ডার নিয়ে সমস্যা হয় বা তারা যেভাবে প্রত্যাশা করে তা যদি প্রিন্ট না করে তবে আমরা এই বিষয়টি আমরা কেয়ার করবো এবং নিশ্চিত করব যে আপনার কাস্টমার রা আসলেই হ্যাপি।

সেল শুরু করুন এবং প্রিন্ট অন ডিমান্ড বিজনেজ এর একটি সাকসেসফুল ওয়েতে চলুন!

Subscribe To Our Newsletter

Get updates and learn from the best

More To Explore

Monthly Live about Facebook Marketing

Here we covered how to do Facebook marketing in effective ways which will drive more traffics and how you can raise the possibility to increase

1000 T-shirt Mockup

এখানে আপনারা পাচ্ছেন ১০০০ টিশার্ট-এর ফ্রি মকআপ! আপনার পছন্দ অনুযায়ী যেকোনো ডিজাইন নিয়ে কাজ করতে পারবেন একদম ফ্রি-তে। তাই দেরি না করে ডাউনলোড করে নিন